ফের বৃষ্টির শঙ্কা, রাতে কমে যেতে পারে তাপমাত্রা

০৮ জানুয়ারি ২০২০, ১৫:১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাতের তুলনায় দিনের বেলা তাপমাত্রা কিছুটা বাড়লেও এখনও দেশের অনেক এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। আবারও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির শঙ্কা প্রকাশ করেছে আবহাওয়া অধিদফতর। আগামী ২৪ ঘণ্টায় রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগের দুই-এক জায়গায় হাল্কা অথবা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এতে তাপমাত্রা কমে যেতে পারে। আগামীকাল বৃহস্পতিবারও (৯ জানুয়ারি) একই আবহাওয়া থাকবে। শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) থেকে তাপমাত্রা বাড়তে পারে।

আজ বুধবার (৮ জানুয়ারি) দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা তেঁতুলিয়ায় ৬ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল তেঁতুলিয়ায় ছিল ৬। এদিকে, ঢাকায় আজ তাপমাত্রা কিছুটা বেড়েছে, আজ ১২ দশমিক ২, গতকাল ছিল ১১ দশমিক ৬ ডিগ্রি। চট্টগ্রামে কমেছে দুই ডিগ্রি, আজ সেখানে ১৩ দশমিক ৯, গতকাল ছিল ১৪, সিলেটে তাপমাত্রা বেড়েছে আজ সেখানে ১৩ দশমিক ৮, গতকাল ছিল ১২ দশমিক ৪। রাজশাহীতে আরও কমেছে আজ ৯ দশমিক ৭, গতকাল ছিল ১০ দশমিক ৪। রংপুরে তাপমাত্রা বেড়েছে আজ ১০, গতকাল ছিল ৯ দশমিক ৮। খুলনায় তাপমাত্রা বেড়েছে, আজ ১২ দশমিক ৩, গতকাল ছিল ১১ এবং আজ বরিশালের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা অপরিবর্তিত আছে, সেখানে গতকালের মতোই আজকের তাপমাত্রা ১১ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এদিকে, ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে আছে রাজশাহী, দিনাজপুর, সৈয়দপুর, তেঁতুলিয়া, ডিমলা এবং চুয়াডাঙ্গা অঞ্চলে। ফলে ওই এলাকাগুলোতে আজ শীতের তীব্রতা অনেক বেশি।

আবহাওয়ার ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়— রাজশাহী, যশোর, চুয়াডাঙ্গা ও টাঙ্গাইল অঞ্চলসহ রংপুর বিভাগের ওপর দিয়ে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।

রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগের দুই-এক জায়গায় হাল্কা অথবা গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া, অন্য এলাকার আকাশ মেঘলাসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। সারাদেশের রাতের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। দিনের তাপমাত্রা অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

আবহাওয়াবিদ আবদুল হামিদ বলেন, ‘আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) শৈত্যপ্রবাহ কমে যেতে পারে। কিন্তু সেটি নির্ভর করছে বৃষ্টির ওপরে। বৃষ্টি হলে তাপমাত্রা নেমে গিয়ে আরও কিছু এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ শুরু হতে পারে। আর বৃষ্টি না হলে তাপমাত্রা বাড়বে। অন্যদিকে, শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) থেকে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হতে পারে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।